1. news.polytechnicbarta@gmail.com : admin :
  2. contact.mdrakib@gmail.com : Rakib Howlader : Rakib Howlader
  3. tanjid.fmphs@gmail.com : Tanjid : Tanjid
বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩৯ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং এর ১ম, ৩য়, ৫ম ও ৭ম পর্বের পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ সিসিএন পরিবারের সাথে বিআরটিসির সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত ও বাস সার্ভিসের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন বিভাগীয় শহরে চাকরির পরীক্ষা নেওয়ার সুপারিশ বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় ডুয়েটের ১৯ শিক্ষক কুমিল্লার ঘটনায় আটক ৪৩, তদন্ত কমিটি গরমে যাত্রীদের জন্য বিমানে হাতপাখা চাইলেন রাজশাহীর এমপি চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে গুলিতে নিহত ৩ জন, ১৪৪ ধারা জারি ‘২০২৩ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে সব কারিগরি শিক্ষক প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জন করবেন’ ২০২৫ সালের মধ্যে সব পলিটেকনিকে পর্যাপ্ত অবকাঠোমো নির্মাণ করা হবে : শিক্ষামন্ত্রী অর্থনীতিতে নোবেল পেলেন ৩ জন

বন্ধ হচ্ছে কারিগরির মেডিকেল টেকনোলজি ও নার্সিং কোর্স

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৪৬০ বার পঠিত

বন্ধ হয়ে যাচ্ছে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে পরিচালিত মেডিকেল টেকনোলজি ও নার্সিং বিষয়ের কোর্সগুলো। আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে এ সংক্রান্ত সব প্রশিক্ষণ কোর্স স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত হবে। সম্প্রতি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রইছ উদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি এ সুপারিশ করেছে।

জানা গেছে, নিয়মবহির্ভূতভাবে মেডিকেল টেকনোলজি এবং নার্সিং কোর্স পরিচালনা নিয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ওই কমিটি গঠন করে। ২৯ নভেম্বর আট সদস্যবিশিষ্ট আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি গঠন করা হয়। অতিরিক্ত সচিব রইছ উদ্দিনের সভাপতিত্বে গঠিত কমিটি ২ ডিসেম্বর এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। সেখানে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সব কোর্স স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালনার সুপারিশ করা হয়েছে।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত সচিব (কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ); অতিরিক্ত সচিব (সিপিটি, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়); অতিরিক্ত সচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ); উপসচিব (আইন ও বিচার বিভাগ), চেয়ারম্যান (বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড); রেজিস্ট্রার (বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিল); সচিব (বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ)।

সুপারিশে বলা হয়, সুপ্রিমকোর্টের সিভিল পিটিশন লিভ টু আপিল নম্বর ২১৪৩/২০১৬ মামলার নির্দেশনা মোতাবেক মেডিকেল টেকনোলজি এবং নার্সিং সংক্রান্ত সব শিক্ষা কার্যক্রম ‘ওয়ান আমব্রেলা কনসেপ্ট’-এর আওতায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক পরিচালিত হবে।

কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের আওতাভুক্ত মেডিকেল টেকনোলজি এবং নার্সিং কোর্স পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর তালিকা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে, তালিকা প্রাপ্তির ৩০ দিনের মধ্যে উক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর অনুমোদন এবং পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ এবং নার্সিং কাউন্সিলে নিবন্ধন/অন্তর্ভুক্তিকরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

এছাড়াও কারিগরি শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক পরিচালিত মেডিকেল টেকনোলজি এবং নার্সিং কোর্সে নতুন করে ভর্তি ও নিবন্ধন (রেজিস্ট্রেশন) কার্যক্রম বন্ধ রাখতে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সুপারিশে কারিগরি শিক্ষাবোর্ড আইন-২০১৮ সংশোধন করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। উক্ত আইনের তফসিল ১ এর ক্রমিক ‘ঞ’ ও ক্রমিক নং ৪ সহ উক্ত তফসিলে উল্লিখিত মেডিকেল টেকনোলজি ও নার্সিং প্রশিক্ষণ কোর্স সংক্রান্ত বিধানাবলি বিলুপ্ত/সংশোধন করে ৩০ দিনের মধ্যে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগকে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়।

আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি মনে করে, কারিগরি শিক্ষাবোর্ড আইন-২০১৮-এর উল্লিখিত তফসিল সংশোধন করা হলে আদালতের প্রদত্ত রায়ে উল্লিখিত ‘ওয়ান আমব্রেলা কনসেপ্ট’ দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।

আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সুপারিশগুলো বাস্তবায়নের কার্যক্রম মনিটরিং করতে অতিরিক্ত সচিব (কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ); অতিরিক্ত সচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ); চেয়ারম্যান (বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড); রেজিস্ট্রার (বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিল); সংশ্লিষ্ট সিনিয়র সহকারী সচিব/উপসচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ) এর সমন্বয়ে ৫ সদস্যের একটি মনিটরিং টিম গঠন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ যুগান্তরকে বলেন, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি সুপারিশ করেছে। এটি অবশ্যই একটি ভালো সংবাদ। এখন এটি বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতর সব কোর্স পরিচালনা করে রোগীদের কথা বিবেচনা করে। কিন্তু কারিগরি বোর্ড কর্তৃক পরিচালিত কোর্সগুলো হয়তো সেরকম ছিল না। তাই ওয়ান আমব্রেলা কনসেপ্ট যত দ্রুত বাস্তবায়িত হবে ততই মঙ্গল।

জানা গেছে, ১৯৬২ সাল থেকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে মেডিকেল টেকনোলজি কোর্স পরিচালিত হয়ে আসছে। ২০০৫ সালে কারিগরি শিক্ষাবোর্ড মেডিকেল টেকনোলজি কোর্স পরিচালনা শুরু করলে জটিলতার সৃষ্টি হয়। এর পাশাপাশি ২০১২ সাল থেকে নার্সিং কোর্সও চালু করে কারিগরি বোর্ড।

সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল দায়েরকারী বেকার এন্ড প্রাইভেট সার্ভিসেস মেডিকেল টেকনোলজিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশে ওয়ান আমব্রেলা কনসেপ্ট ৩ বছরেও বাস্তবায়ন না হওয়া অত্যন্ত দুঃখজনক। আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটির সুপারিশগুলো দ্রুত বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © polytechnicbarta.com
Theme Customized BY LatestNews