1. news.polytechnicbarta@gmail.com : admin :
  2. contact.mdrakib@gmail.com : Rakib Howlader : Rakib Howlader
  3. tanjid.fmphs@gmail.com : Tanjid : Tanjid
১৮ মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে রাজশাহীতে পলিটেকনিক শিক্ষকদের মানববন্ধন - পলিটেকনিক বার্তা
বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৭:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
মেট্রোরেলের সর্বনিম্ন ভাড়া ২০ টাকা, সর্বোচ্চ ৯০ ব্যক্তি উদ্যোগে অর্ধ শত পরিবারে তৌহিদের ঈদ উপহার বিতরণ ডিপ্লোমা শেষ করা শিক্ষার্থীরা সব বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পাবেন: শিক্ষামন্ত্রী মুহাম্মদ (সা.) এর পোশাক দেখতে ইস্তাম্বুলে হাজারো মানুষের ঢল জঙ্গিবাদে জড়ানোয় পলিটেকনিক পড়ুয়া ছাত্র গ্রেপ্তার কর্ম উপযোগী শিক্ষার জন্য কারিগরি শিক্ষাক্রম পরিমার্জন করা হবে: দীপু মনি বাংলাদেশ থেকে এ বছর হজে যেতে পারবেন ৫৭ হাজার ৮৫৬ জন উচ্চশিক্ষা গ্রহণে বিনামূল্যে শেখার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে রোজা রেখে যেসব কাজ করবেন না কারিগরি শিক্ষায় অগ্রগতির প্রশংসা মার্কিন রাষ্ট্রদূতের, দাবি মন্ত্রণালয়ের

১৮ মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে রাজশাহীতে পলিটেকনিক শিক্ষকদের মানববন্ধন

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১৪৬ বার পঠিত

রাজশাহীতে ১৮ মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবিতে কারিগরি শিক্ষকেরা মানববন্ধন করেছেন। আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শহীদ মিনার চত্বরে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ও রাজশাহী মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষকদের যৌথ উদ্যোগে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বাংলাদেশ পলিটেকনিক টিচার্স ফেডারেশন রাজশাহী শাখার সভাপতি আহমেদ হোসেনের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ পলিটেকনিক টিচার্স ফেডারেশনের (বিপিটিএফ) সভাপতি মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশের (আইডিবি) রাজশাহী জেলা শাখার সহসভাপতি মেরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র-শিক্ষক পেশাজীবী সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর আলমসহ দুই পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষকেরা মানববন্ধনে বক্তব্য দেন।

বক্তারা বলেন, সরকার দেশের কারিগরি শিক্ষার হার ২০২০ সালে ২০ শতাংশ, ২০৩০ সালে ৩০ শতাংশ ও ২০৪১ সালে ৪০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। কারিগরি শিক্ষার সম্প্রসারণ ও মানোন্নয়নের লক্ষ্যে ২০১২ ও ২০১৪ সালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের আওতায় চাকরির সম্পূর্ণ বিধিবিধান মেনে স্টেপ প্রকল্পের মাধ্যমে ১ হাজার ১৫ জনকে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। এর মধ্যে ৭৭৭ শিক্ষক বর্তমানে কর্মরত আছেন।

বক্তারা আরও বলেন, প্রকল্পের মেয়াদ শেষে সরকারের থোক বরাদ্দ খাত থেকে ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে শিক্ষকদের বেতন দেওয়া হয়েছিল। তবে ২০২০ সালের জুলাই মাস থেকে ২০২১ সালের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত কোনো প্রকার বেতন–ভাতার ব্যবস্থা করা হয়নি। করোনার মধ্যে বেতন না পাওয়ায় তাঁরা খুব কষ্টে দিন পার করছেন। এ সময় শিক্ষকদের দ্রুত বকেয়া বেতন–ভাতা পরিশোধ করতে সরকারের কাছে অনুরোধ জানান শিক্ষকেরা। দ্রুত বেতন পরিশোধ না করা হলে সারা দেশের বঞ্চিত শিক্ষকেরা আরও বড় কর্মসূচির দিকে যাবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © polytechnicbarta.com
Theme Customized BY LatestNews