1. news.polytechnicbarta@gmail.com : admin :
  2. contact.mdrakib@gmail.com : Rakib Howlader : Rakib Howlader
  3. tanjid.fmphs@gmail.com : Tanjid : Tanjid
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১২:০০ পূর্বাহ্ন

কারিগরি ডিপ্লোমাধারীদের উচ্চশিক্ষা জরুরি

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম শনিবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৪০৭ বার পঠিত

বর্তমান বিশ্বে কারিগরি ডিপ্লোমা ডিগ্রি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি শিক্ষাব্যবস্থা, এই শিক্ষা দ্বারা চার বছরের মধ্যেই একজন কারিগরি ডিপ্লোমাধারী তার কর্মজীবনে প্রবেশ করতে পারেন। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ শিক্ষা, তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো প্রকাশিত রিপোর্ট হতে সংগৃহীত মোট এনরোলমেন্ট ৭৮,৬৭,৮২৯ জন। যেখানে সাধারণ ও মাদরাসা শিক্ষায় ৬৬,০৫,০৬৮ জনের বিপরীতে কারিগরি শিক্ষায় ১২,৬২,৭৬১ জন অর্থাৎ এনরোলমেন্ট হার ১৬.০৫ ভাগের মধ্যে কারিগরি ডিপ্লোমাস্তরে মোট এনরোলমেন্ট হচ্ছে ৩,১৭,৮০৬ জন অর্থাৎ এনরোলমেন্ট হার ৪.০৪ শতাংশ। ২০১৯ সালের হিসাবমতে, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে ৪৯ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট রয়েছে; যার মধ্যে ৩ মনোটেকনিক ইনস্টিটিউটের উভয় শিফটে প্রায় ৮৩৮০০ আসন, ৬৪ টিএসসি ও ভিটিটিআইতে ৬০৫০ আসনসহ বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের নিয়ন্ত্রণে ২০১৯ সালের হিসাবমতে, ১১৮৩ বেসরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ১,১৬,৫০০ অধিক আসন রয়েছে। এ ছাড়া আট সরকারি টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটে ১১০০ আসন ও ২১০ বেসরকারি টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটে ৩২২২০ আসন রয়েছে, ৬ সরকারি মেরিন ইনস্টিটিউটে ৫০০ আসন ও ৩০ বেসরকারি মেরিন ইনস্টিটিউটে চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ডিগ্রি গ্রহণ করছে, ১৮ সরকারি কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ৩৮৫০ আসন ও ১৬৬ বেসরকারি কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ১০২০০ আসন রয়েছে। চার সরকারি মৎস্য ডিপ্লোমা ইনস্টিটিউটে ২০০ আসনসহ ৫৪ বেসরকারি মৎস্য ডিপ্লোমা ইনস্টিটিউটে ২৭০০ আসন রয়েছে। এক সরকারি বনবিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ইনস্টিটিউটে ৫০ ও এক সরকারি লাইভস্টক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ইনস্টিটিউটে ৫০ আসন রয়েছে। বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের ২০১৮-১৯ সালের হিসাবমতে, কারিগরি ডিপ্লোমাস্তরে ১,০৪,৭৬৭ জন শিক্ষার্থী নিবন্ধনসম্পন্ন হয়েছে ও ২০১৯ সালের হিসাবমতে, ৫৩,২৮৬ জন ছাত্রীসহ মোট এনরোলমেন্ট ৩,১৮,১২৭ জন। এ ছাড়া বিদ্যমান ৪৯টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে প্রতি বছর বাড়তি ২৫০০০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য অধিকসংখ্যক শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে বিদ্যমান পলিটেকনিকগুলোর অবকাঠামো উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। সিলেট, বগুড়া, ময়মনসিংহ, রংপুর বিভাগীয় শহরে চার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে প্রতি বছর ১৬০০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য চার মহিলা পলিটেকনিক স্থাপন শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। কুমিল্লা, রাজশাহী, পটুয়াখালী, যশোর জেলায় চার সার্ভে ইনস্টিটিউটে প্রতি বছর ৮০০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য বাংলাদেশ ভূমি জরিপ শিক্ষার উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ২৩ জেলায় প্রতি বছর ৯২০০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য ২৩ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপন শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। উল্লিখিত কার্যক্রম সম্পন্ন হলে দেশে কারিগরি ডিপ্লোমাধারী শিক্ষাক্রমে বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে ডিপ্লোমা সনদপ্রাপ্ত হবেন।

এ ছাড়া ডিপ্লোমা প্রকৌশলী ডিগ্রি অর্জনের পর উচ্চশিক্ষার জন্য ঢাকা ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি (ডুয়েট) ৬৫০টি আসন, বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ (বিটেক) টাঙ্গাইল-১২০টি আসন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ইউনিভার্সিটিসহ অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে খুবই সীমিতসংখ্যক ডিপ্লোমা প্রকৌশলী ডিগ্রিধারী বিএসসি সম্পন্ন করার সুযোগ পান। এ ছাড়া বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে চট্টগ্রাম, খুলনা, রাজশাহী, রংপুর বিভাগে চারটি করে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ স্থাপন করা হচ্ছে; যার মধ্যে ৩৬০ জন শিক্ষার্থীর জন্য দুই কলেজ ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের জন্য সংরক্ষণ করতে হয়েছে। এ ছাড়া আরো দু-একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানে সব মিলিয়ে ১১৩০ থেকে ১২০০ শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষার সুযোগ পান, যা মোট ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের এক ভাগেরও কম ডিপ্লোমা প্রকৌশলী উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পেয়ে থাকেন। সরকারি-বেসরকারি পলিটেকনিক হতে পাসকৃত কয়েক লক্ষাধিক ডিপ্লোমা প্রকৌশলীই সরকারি প্রতিষ্ঠানে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারেন না। এর ফলে কিছু সচ্ছল শিক্ষার্থী তাদের পৈতৃক সম্পদ নষ্ট করে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে উচ্চশিক্ষার সনদ গ্রহণ করে থাকেন, কিন্তু যেসব শিক্ষার্থী আর্থিক দিক দিয়ে অসচ্ছল তারা আর উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারেন না।

——ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা স্নাতকস্তরে প্রকৌশল ও প্রযুক্তি খাতে উচ্চশিক্ষা হিসেবে তিন ধরনের শিক্ষা গ্রহণ করতে পারেন বিএসসি-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং, বিএসসি-ইন-টেকনোলজি (ই.ঞবপয), বিএসসি-ইন-টেকনিক্যাল এডুকেশন (পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষকদের জন্য নির্ধারিত রয়েছে)। বিএসসি-ইন-টেকনিক্যাল এডুকেশন কোর্সটি তিন বছর মেয়াদি, অপরদিকে ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের জন্য বিএসসি-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সগুলো কয়েকটি সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন বছর থেকে তিন বছর ছয় মাস মেয়াদি। কিন্তু বেশির ভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ে চার বছর মেয়াদি, ফলে ডিপ্লোমা প্রকৌশলী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন থেকে অতিরিক্ত দুই বছর নষ্ট হয়ে যায়। বর্তমানে সরকার চারটি সরকারি টেক্সটাইল ডিপ্লোমা প্রকৌশল ইনস্টিটিউটে ডিপ্লোমা প্রকৌশলসহ বিএসসি প্রকৌশল কোর্স চালু করেছে, যার একটি বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ (বিটেক)-১২০টি আসন ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের জন্য সংরক্ষণ করা হয়েছে; ফলে বস্ত্র খাতে দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে সহায়ক ভূমিকা রাখতে সক্ষম হচ্ছে। তাই ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের উচ্চশিক্ষার জন্য প্রাথমিকভাবে পুরাতন ২০টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটকে পলিটেকনিক কলেজে রূপান্তর করে ই.ঞবপয কোর্স চালু করা প্রয়োজন, এসব প্রতিষ্ঠানে ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্সের পাশাপাশি ই.ঞবপয কোর্স চালু থাকবে। ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের জন্য ই.ঞবপয কোর্সটি শুধু অর্থ উপার্জন বা চাকরির জন্যই নয়, বরং সমাজে স্নাতক ডিগ্রির মান পাওয়ার জন্যও উচ্চশিক্ষার প্রয়োজন রয়েছে। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জে অবস্থিত বাংলাদেশ মেরিন ইনস্টিটিউটকেও বাংলাদেশ মেরিন কলেজে রূপান্তর করার প্রয়োজন রয়েছে। একই সঙ্গে একটি সার্ভে ইনস্টিটিউটকে সার্ভে কলেজে, একাধিক কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটকে কৃষি প্রশিক্ষণ কলেজে রূপান্তর করার প্রয়োজন রয়েছে। এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন ই.ঞবপয ও বিএসসি প্রকৌশলের মধ্যে পার্থক্য হলো বিএসসি প্রকৌশল কোর্সে ৮০ ভাগ তাত্ত্বিক ও ২০ ভাগ ব্যবহারিক এবং ই.ঞবপয কোর্সটি ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্সের ন্যায় ৬০ ভাগ ব্যবহারিক ও ৪০ ভাগ তাত্ত্বিক, শুধু ইংরেজি মাধ্যমে পরিচালিত হয়। এ ছাড়া বর্তমানে বিদ্যামান ও নির্মাণাধীন পলিটেকনিকগুলোর ডিপ্লোমা প্রকৌশলী শিক্ষকদের বিএসসি-ইন-টেকনিক্যাল এডুকেশন কোর্সটি সম্পন্ন করার জন্য এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি)-এর আর্থিক সহযোগিতায় ৬টি বিভাগীয় সদরে অবস্থিত পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে কারিগরি শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে।

ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের উচ্চশিক্ষার জন্য নির্ধারিত ই.ঞবপয কোর্সটি হবে তিন বছর মেয়াদি, প্রতি বছরে দুটি করে পর্ব অর্থাৎ মোট ছয়টি পর্বে বিভক্ত হবে। বিএসসি-ইন-টেকনোলজি (ই.ঞবপয) কোর্সটি দুটি ভাগে বিভক্ত থাকবে তৃতীয় পর্ব পাস করার পর একজন শিক্ষার্থী অ্যাডভান্স ডিপ্লোমা-ইন-টেকনোলজি (অউ.ঞবপয) বা হায়ার ডিপ্লোমা-ইন-টেকনোলজি (ঐউ.ঞবপয) সনদপ্রাপ্ত হবেন ও ষষ্ঠ পর্ব পাস করার পর একজন শিক্ষার্থী বিএসসি-ইন-টেকনোলজি (ই.ঞবপয) সনদপ্রাপ্ত হবেন। বিএসসি প্রকৌশল কোর্সে যেসব মেধাবী ডিপ্লোমা প্রকৌশলী সরকারি প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে না পারবেন, তারাই ই.ঞবপয কোর্সটিতে ভর্তি হয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারবেন। ই.ঞবপয কোর্সে ভর্তি হওয়ার জন্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্সে জিপিএ ৪.০০-এর মধ্যে ২.০০ থাকতে হবে। প্রাথমিক ভাগে ২০টি পলিটেকনিকে ৪টি বিষয়ে ই.ঞবপয কোর্স চালু করতে হবে। ই.ঞবপয কোর্সর একটি টেকনোলজি চালু করার সময় অবশ্যই লক্ষ রাখতে হবে; যাতে ডিপ্লোমা প্রকৌশল পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট দুটি টেকনোলজি ওই প্রতিষ্ঠানে চালু থাকে, উদাহরণস্বরূপ বলা যায় ই.ঞবপয-এর ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস টেকনোলজি চালু করতে হলে ওই প্রতিষ্ঠানে ডিপ্লোমা পর্যায়ের ইলেকট্রিক্যাল টেকনোলজি, ইলেকট্রনিকস টেকনোলজি দুটি থাকতে হবে অথবা ডিপ্লোমা পর্যায়ে টেকনোলজি চালু করে নিতে হবে। ই.ঞবপয কোর্সটি চালুর ক্ষেত্রে মাদার টেকনোলজিকে প্রাধান্য দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে চাকরির বাজারের ওপর ভিত্তি করে সিভিল, আর্কিটেকচার, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস, কেমিক্যাল, মেকানিক্যাল, কম্পিউটার, টেক্সটাইল টেকনোলজি ব্যতীত অন্য কোনো বিভাগ চালু করা যাবে না। ই.ঞবপয কোর্সটি পরিচালনার জন্য ডুয়েট অথবা জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০-এর আলোকে পৃথক কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা প্রয়োজন অথবা প্রাথমিকভাবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমেও ই.ঞবপয কোর্সটি পরিচালনা করা যেতে পারে, বর্তমানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ও বিএসসি-ইন-টেক্সটাইল টেকনোলজি, বিএসসি-ইন-অ্যাপারাল ম্যানুফ্যাকচার টেকনোলজি, বিএসসি-ইন-নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচার টেকনোলজিসহ বেশ কয়েকটি টেকনোলজিতে ই.ঞবপয কোর্স চালু রেখেছে। ই.ঞবপয কোর্সটি প্রাথমিকভাবে পুরাতন পলিটেকনিকগুলো চালু হলে সরকারের অবকাঠামো, কাঁচামাল, যন্ত্রপাতির অপচয় রক্ষা হওয়াসহ সরকারি ও বেসরকারি পলিটেকনিকের অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষার সুযোগ পাবেন।

লেখক : প্রকৌশলী রিপন কুমার দাস
ট্রেড ইনস্ট্রাক্টর
ডোনাভান মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পটুয়াখালী
ripan.edu48@gmail.com

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © polytechnicbarta.com
Theme Customized BY LatestNews